1. admin@muhurto.tv : muhurtotv :
  2. info@netpeon.org : Ali Siddiki : Ali Siddiki
  3. smbabu.mcj@outlook.com : S M Babu : S M Babu
শনিবার, ২২ জানুয়ারী ২০২২, ০১:৩০ পূর্বাহ্ন

ইভ্যালির সাথে বিকাশের লেনদেনও বন্ধ

নিজস্ব প্রতিবেদক, সংবাদ মুহূর্ত।
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ শনিবার, ১৭ জুলাই, ২০২১
  • ১৩৮ প্রদর্শিত সময়ঃ

ইভ্যালিসহ ১০টি অনলাইন মার্চেন্টে পেমেন্ট স্থগিত করেছে দেশের অন্যতম আর্থিক সেবাদাতা প্রতিষ্ঠান বিকাশ। নিষেধাজ্ঞার তালিকায় বাকি প্রতিষ্ঠানগুলোর হচ্ছে, ই-অরেঞ্জ, সিরাজগঞ্জ শপিং, আলাদিনের প্রদীপ, কিউকম, বুমবুম, আদিয়ান মার্ট ও নিডস ডট কম বিডি।

বিকাশ এর হেড অব করপোরেট কমিউনিকেশনস শামসুদ্দিন হায়দার ডালিম সংবাদ মুহূর্তকে বলেন, ই-কমার্সের ক্ষেত্রে রেগুলেটর প্রদত্ত পেমেন্ট বিষয়ক যে নীতিমালাগুলো আছে সেটিকে কার্যকর করার জন্য আমরা নিবিড়ভাবে কাজ করে যাচ্ছি। এসময়ে একমাত্র গ্রাহকদের স্বার্থেই কিছু মার্চেন্টের জন্য বিকাশের পেমেন্ট গেটওয়েটি সাময়িকভাবে বন্ধ রাখা হয়েছে। এবং রেগুলেটরের নীতিমালা অনুযায়ী পেমেন্ট সিস্টেমটি কার্যকর হলে বিকাশ পেমেন্ট গেটওয়ে পুনরায় চালু করা হবে।

এর আগেও বেশ কিছু ব্যাংক ইভ্যালির সঙ্গে তা‌দের ক্রেডিট, ডেবিট ও প্রি-পেইড কার্ডেরও লেনদেন স্থ‌গিত করে। এরম‌ধ্যে রয়েছে  প্রাইম ব্যাংক, ডাচ-বাংলা ব্যাং‌ক, মিউচুয়াল ট্রাস্ট ব্যাংক (এম‌টি‌বি), ব্যাংক এশিয়া, ব্র্যাক ব্যাংক ও ঢাকা ব্যাংক। এর পাশাপাশি ইউসিবি ও সিটি ব্যাংকগুলোও তাদের গ্রাহকদের এই অনলাইন মার্চেন্টে লেনদেনের বিষয়ে সতর্ক করেছে।

অন্যদিকে, ইভ্যালির সাথে চুক্তিবদ্ধ বেশকিছু পণ্য সরবরাহকারী প্রতিষ্ঠানগুলোর ভাউচারের বিপরীতে দেয়া পাওনা অর্থ পরিশোধ না করার ফলে তারা পণ্য আর দিচ্ছে না। এছাড়াও সম্প্রতি ইভ্যালির গিফট ভাউচারে কেনাকাটার জন্য নিষেধাজ্ঞা দিয়ে বেশকিছু প্রতিষ্ঠানও বিজ্ঞপ্তি দিয়েছে।

এর আগে বাংলাদেশ ব্যাংকের এক প্রতিবেদনে  ইভ্যালির সম্পদের থেকে ছয় গুণ বেশি দেনা বলে এক তথ্য উঠে আসে। সে প্রতিবেদনে দেখা যায় ইভ্যালির মোট দেনা ৪০৭ কোটি টাকা। গ্রাহকের কাছ থেকে প্রতিষ্ঠানটি অগ্রিম নিয়েছে ২১৪ কোটি টাকা, আর মার্চেন্টদের কাছ থেকে বাকিতে পণ্য নিয়েছে ১৯০ কোটি টাকার। অতএব স্বাভাবিক নিয়মেই প্রতিষ্ঠানটির কাছে চলতি সম্পদ কমপক্ষে ৪০৪ কোটি টাকার থাকার কথা। কিন্তু সেখানে সম্পদ আছে মাত্র ৬৫ কোটি টাকার।

এছাড়াও গ্রাহক এবং মার্চেন্টদের কাছ থেকে গত ১৪ মার্চ পর্যন্ত ইভ্যালির অগ্রিম নেওয়া ৩৩৯ কোটি টাকার এখন পর্যন্ত কোনো হদিস পাওয়া যাচ্ছে না। এ টাকা আত্মসাৎ বা অবৈধভাবে অন্যত্র সরিয়ে ফেলারও আশঙ্কা রয়েছে।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত মুহূর্ত কমিউনিকেশনস লিমিটেড।
error: কপি/রাইট ক্লিক এর অনুমতি নাই !!!