1. admin@muhurto.tv : muhurtotv :
  2. smbabu.mcj@outlook.com : S M Babu : S M Babu
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৭:১৩ অপরাহ্ন
সর্বশেষ মুহূর্তঃ
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের এি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত মহানগরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনার খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় রাজশাহীতে দোয়া মাহফিল রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনারের প্রতিমা বিসর্জন পরিদর্শন রাজশাহীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে সাদাছড়ি বিতরণ দুর্গাপূজায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন আরএমপির সিআরটি সদস্যদের সাতদিনের মেন্টরশিপ কোর্স শুরু ইউএনও’র হস্তক্ষেপে শেষযাত্রায় অজ্ঞাত মরদেহের পরিচয় মিলেছে মাদ্রিদে বাংলাদেশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ভ্রাতৃ সমাবেশ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের অনুদানের চেক বিতরণ করলেন বসিক মেয়র

৩৬ মণ ওজনের সুলতান সুলেমানকে বিক্রি করা নিয়ে দুশ্চিন্তা

নিজস্ব প্রতিবেদক, সংবাদ মুহূর্ত, ময়মনসিংহ।
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ শনিবার, ১০ জুলাই, ২০২১
  • ৮১ প্রদর্শিত সময়ঃ

ময়মনসিংহজুড়ে এখন সুলতান সুলেমানের বেশ নামডাক। ফিজিয়ান জাতের ষাঁড়টির দৈর্ঘ্য ১০ ফুট আর উচ্চতা পাঁচ ফুট ছয় ইঞ্চি। চার বছর বয়সী এই ষাঁড়ের ওজন প্রায় ৩৬ মণ। ষাঁড়টির দাম ২৫ লাখ টাকা হাঁকা হচ্ছে। আসন্ন ঈদে কোরবানির জন্য ষাঁড়টিকে প্রস্তুত করেছেন ময়মনসিংহের হালুয়াঘাট উপজেলার নাগলা বাজারের খামারী এবাদুল ইসলাম। ষাঁড়টি দেখতে প্রতিদিন তার বাড়িতে ভিড় করছে মানুষ।

২০১৬ সালে কৃত্রিম প্রজননের মাধ্যমে সুলতান সুলেমানের জন্ম হয়। জন্মের পর থেকে ষাঁড়টি দেশিয় পদ্ধতিতে মোটাতাজা করা হয়েছে। গত বছর থেকেই এটি বিক্রির চেষ্টা করছেন এবাদুল। তবে করোনা পরিস্থিতির কারণে গত বছর ষাঁড়টি বিক্রি করতে পারেননি তিনি।

এবাদুল জানান, সুলতান সুলেমানকে প্রতিদিন কাঁচা ঘাস, খড়, গমের ভুসি, চালের কুঁড়া, ভুট্টা, ডালের গুঁড়া, ছোলা, খুদের ভাতসহ সম্পূরক কিছু খাবার দেয়া হয়। সব মিলিয়ে গরুটি প্রতিদিন গড়ে ৫০-৬০ কেজি খাবার খায়। প্রতি মাসে ষাঁড়টির জন্য ১৫ থেকে ১৬ হাজার টাকা খরচ হয়।

এবাদুল বলেন, ২০১৮ সালে তার খামারের ১২টি গরু বিক্রি করে দিয়েছেন তিনি। বর্তমানে এই ষাঁড় আর একটি বাছুর রয়েছে খামারে। ভালো দাম পেলেই ষাঁড়টি বিক্রি করতে চান তিনি। তবে লকডাউনের কারণে অনলাইনে ছবি ও বিবরণ দিয়ে এটি বিক্রির চেষ্টা করছেন।

উপজেলা ভেটেরিনারি সার্জন তারেক আহমেদ জানান, ষাঁড়টি লালন-পালনে খামারী এবাদুলকে সব সময় প্রাণিসম্পদ বিভাগের পক্ষ থেকে সহযোগিতা করা হয়েছে। এখন পর্যন্ত তার দেখা সবচেয়ে বড় গরু এটি বলে তিনি জানিয়েছেন।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত মুহূর্ত কমিউনিকেশনস লিমিটেড।
error: কপি/রাইট ক্লিক এর অনুমতি নাই !!!