1. admin@muhurto.tv : muhurtotv :
  2. smbabu.mcj@outlook.com : S M Babu : S M Babu
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৫:৫০ অপরাহ্ন
সর্বশেষ মুহূর্তঃ
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের এি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত মহানগরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনার খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় রাজশাহীতে দোয়া মাহফিল রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনারের প্রতিমা বিসর্জন পরিদর্শন রাজশাহীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে সাদাছড়ি বিতরণ দুর্গাপূজায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন আরএমপির সিআরটি সদস্যদের সাতদিনের মেন্টরশিপ কোর্স শুরু ইউএনও’র হস্তক্ষেপে শেষযাত্রায় অজ্ঞাত মরদেহের পরিচয় মিলেছে মাদ্রিদে বাংলাদেশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ভ্রাতৃ সমাবেশ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের অনুদানের চেক বিতরণ করলেন বসিক মেয়র

পঞ্চমবারের মতো সিরাজগঞ্জ শহররক্ষা বাঁধে ধস

এইচ এম আলমগীর কবির, সংবাদ মুহূর্ত, সিরাজগঞ্জ।
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ বৃহস্পতিবার, ১ জুলাই, ২০২১
  • ৬৮ প্রদর্শিত সময়ঃ


সিরাজগঞ্জ শহররক্ষা বাঁধে পঞ্চমবারের মত ভাঙন শুরু হয়েছে। ফলে আবারও ১২০ মিটার অংশ যমুনা নদীতে বিলিন হয়ে গেছে। বাঁধটির স্থায়ীত্ব নির্ধারণ করা হয়েছিল একশ বছর। কিন্তু বাঁধ ধসের কোনও কারণ খুঁজে পাচ্ছেনা পানি উন্নয়ন বোর্ড। তবে স্থানীয়দের অভিযোগ, পাউবোর গাফলতি ও অবহেলার কারণে বারবার বাঁধে ধস হচ্ছে। বর্তমান অবস্থায় আতঙ্কিত হয়ে পড়েছে সিরাজগঞ্জ শহরবাসী।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ড অফিস সুত্রে জানা গেছে, সিরাজগঞ্জ শহরকে যমুনা নদীর ভাঙন থেকে রক্ষায় বঙ্গবন্ধু যমুনা সেতু প্রকল্পের আওতায় ১৯৯৭ সালে আড়াই কিলোমিটার দীর্ঘ এই শহররক্ষা বাঁধটি নির্মাণ করা হয়। ৩৭৫ কোটি টাকা ব্যয়ে দক্ষিণ কোরিয়া ভিত্তিক ঠিকাদারী প্রতিষ্ঠান হুন্দাই লিমিটেড বাঁধ নির্মাণ করে। নির্মাণকালে এই বাঁধটির স্থায়ীত্ব নির্ধারণ করা হয়েছিল একশ বছর। নির্মাণের পর ১৯৯৭ সালে বাঁধের দায়িত্ব বুঝে নেয় স্থানীয় পানি উন্নয়ন বোর্ড। একশ বছরের স্থায়ীত্ব নির্ধারণ করে নির্মিত এই বাঁধটি নিয়মিত পর্যবেক্ষণের জন্য ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান হুন্দাই লিমিটেড পানি উন্নয়ন বোর্ডকে পরামর্শ দিয়েছিল।

পানি উন্নয়ন বোর্ড দায়িত্ব গ্রহণের ১২ বছর পর ২০০৯ সালের ১০ জুলাই প্রথমবারের মতো এই বাঁধে ধস নামে। এরপর একই বছরের ১৭ জুলাই দ্বিতীয় দফায় ধস নামে। ২০১০ সালের ১৬ জুলাই তৃতীয় দফায় বাঁধে ধস নামে। এরপর ২০১১ সালের ১৮ জুলাই চতুর্থবারের মতো এবং সর্বশেষ ২০২১ সালের ২৯ জুন পঞ্চমবারের মতো এই বাঁধটিতে ধস নামলো।

বুধবার (৩০ জুন) সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোর্ডের উপ-সহকারী পরিচালক জাকির হোসেন জানান, ধস ঠেকাতে প্রায় ১০ হাজার বালুভর্তি জিওব্যাগ ফেলে ভাঙন নিয়ন্ত্রণে আনা হয়েছে। তিনি আরও জানান, মঙ্গলবার (২৯ জুন) দুপুর থেকে শহর রক্ষা বাঁধের পুরাতন জেলখানা ঘাট এলাকায় ধস শুরু হয়। দেড় ঘণ্টার মধ্যেই বাঁধের প্রায় ১২০ মিটার বাঁধ নদীতে বিলীন হয়ে যায়।

সিরাজগঞ্জ পানি উন্নয়ন বোডের্র নির্বাহী প্রকৌশলী মো. শফিকুল ইসলাম জানান, টানা বর্ষণ ও নদীর পানির তীব্র স্রোতে ঘূর্ণাবতের সৃষ্টি হয়ে বাঁধের নিচ থেকে মাটি সরে সিসি ব্লকগুলো দেবে গেছে। দু’দিন আগেও আমরা এখানে ভালো অবস্থা দেখেছি। মঙ্গলবার আকস্মিকভাবে ধস দেখা দিয়েছে। বালুভর্তি জিওব্যাগ ফেলে ভাঙন নিয়ন্ত্রণের চেষ্টা চলছে।

এদিকে, বাঁধ ধসের খবর পেয়ে সিরাজগঞ্জের জেলা প্রশাসক ড. ফারুক আহাম্মদ, পুলিশ সুপার হাসিবুল আলম বিপিএম, সদর উপজেলা নির্বাহী কর্মকর্তা আনোয়ার পারভেজ, জেলা আওয়ামী লীগের ভারপ্রাপ্ত সভাপতি এ্যাডভোকেট কে এম হোসেন আলী হাসানসহ প্রশাসনের কর্মকর্তা ও জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ ভাঙনস্থল পরিদর্শন করেন।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত মুহূর্ত কমিউনিকেশনস লিমিটেড।
error: কপি/রাইট ক্লিক এর অনুমতি নাই !!!