1. admin@muhurto.tv : muhurtotv :
  2. smbabu.mcj@outlook.com : S M Babu : S M Babu
মঙ্গলবার, ১৯ অক্টোবর ২০২১, ০৪:৫৮ অপরাহ্ন
সর্বশেষ মুহূর্তঃ
রাজবাড়ী জেলা আওয়ামী লীগের এি-বার্ষিক সম্মেলন অনুষ্ঠিত মহানগরীর পূজা মন্ডপ পরিদর্শন করলেন রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনার খালেদা জিয়ার রোগমুক্তি কামনায় রাজশাহীতে দোয়া মাহফিল রাসিক মেয়র ও আরএমপি কমিশনারের প্রতিমা বিসর্জন পরিদর্শন রাজশাহীতে দৃষ্টি প্রতিবন্ধীদের মাঝে সাদাছড়ি বিতরণ দুর্গাপূজায় আইন-শৃঙ্খলা রক্ষায় রাজশাহীতে বিজিবি মোতায়েন আরএমপির সিআরটি সদস্যদের সাতদিনের মেন্টরশিপ কোর্স শুরু ইউএনও’র হস্তক্ষেপে শেষযাত্রায় অজ্ঞাত মরদেহের পরিচয় মিলেছে মাদ্রিদে বাংলাদেশি ব্যবসা প্রতিষ্ঠানের ভ্রাতৃ সমাবেশ প্রধানমন্ত্রীর জন্মদিনের অনুদানের চেক বিতরণ করলেন বসিক মেয়র

খুলনা উপকূলে টেকসই বেড়িবাঁধের দাবি জোরালো হচ্ছে

স্বপ্না সরদার, সংবাদ মুহূর্ত, খুলনা।
  • তথ্য হালনাগাদের সময়ঃ মঙ্গলবার, ১ জুন, ২০২১
  • ৭১ প্রদর্শিত সময়ঃ

প্রলয়ংকরি ঘূর্ণিঝড় আইলার অভিজ্ঞতার পর ত্রাণ নয় টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের দাবি ক্রমেই জোরালো হচ্ছে উপকূলে। এদিকে, ইয়াসের প্রভাবে জলোচ্ছ্বাসের ছয়দিন পরও মেরামত হয়নি ভেঙে যাওয়া বাঁধ। তাই সহায় সম্বলহীন মানুষের মানবেতর জীবনযাপন চলছে খুলনার উপকূলজুড়ে।

উপকূলীয় কয়রায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসদুর্গত এলাকা পরিদর্শনকালে স্থানীয় সাংসদ ও প্রশাসনের কাছে এমনই দাবি করছেন এলাকার সর্বস্তরের মানুষ। দুর্গতদের পুনর্বাসনে মঙ্গলবার স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু উপজেলার সবচেয়ে স্পর্শকাতর ভাঙনকবলিত দশালিয়া বাঁধে পৌঁছলে স্বেচ্ছাশ্রমে বাঁধে কাজ করা হাজার হাজার গ্রামবাসী স্থানীয় সংসদকে ঘিরে টেঁকসই বাঁধের জোরালো দাবি তুলে। এসময় সংসদ সদস্য তাদেরকে দ্রুত টেকসই বাঁধ নির্মাণের আশ্বাস দেন। এছাড়াও সাংসদ গ্রামবাসীদের সাথে বাঁধ মেরামতের কাজেও অংশ নেন।

এর আগে উপজেলা পরিষদ মিলনায়তনে মতবিনিময় সভায় আলোচনার কেন্দ্রবিন্দুতে চলে আসে টেকসই বেড়িবাঁধ নির্মাণের প্রসঙ্গ। সোমবার খুলনা জেলা আওয়ামী লীগের নেতৃবৃন্দ দুর্গতদের মাঝে ত্রাণ সামগ্রী বিতরণকালে ও মানুষ একই দাবি করেন। দুর্গতরা জানান, প্রতিবছর উপকূলীয় এলাকায় একের পর এক আঘাত হানছে ঘূর্ণিঝড়, লন্ডভন্ড হচ্ছে উপকূলীয় এলাকার বেড়িবাঁধ, ফলে অরক্ষিত হয়ে পড়েছে মানুষ ঘরবাড়ি, গবাদি পশুসহ অন্যান্য সম্পদ।

এদিকে, ঘূর্ণিঝড় ইয়াসের ছয়দিন কেটে গেলেও কয়রা উপকূলের ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ মেরামত না হওয়ায় চরম দূর্ভোগে দিনাতিপাত করছে পানিবন্দি হাজার হাজার মানুষ। গত ২৬ মে ঘূর্ণিঝড় ইয়াস এর প্রভাবে পাউবোর বেড়িবাঁধ ভেঙে উপজেলার পাঁচটি ইউনিয়ন নোনা পানিতে নিমজ্জিত হয়। পানির তোড়ে ঘরবাড়ি ধান চাল আসবাবপত্রসহ সহায় সম্বল হারিয়ে মানুষ দিশেহারা হয়ে পড়েছে। গ্রামবাসী স্বেচ্ছাশ্রমে কয়েকটি বাঁধ আটকাতে সক্ষম হলেও মহারাজপুরের দশালীয়া ও উত্তর বেদকাশী গাতিরঘেরি বাঁধ দিয়ে অব্যাহত জোয়ারের পানিতে তলিয়ে রয়েছে তিনটি ইউনিয়নের অন্তত ৪০ টি গ্রাম, এতে করে পানিবন্দি হয়ে রয়েছে প্রায় অর্ধ লক্ষাধিক মানুষ।

বাগালি ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুস সাত্তার পাড় জানান, ‘দশালিয়ার বাঁধ ভেঙে তার ইউনিয়নের ৩৫ টি গ্রামের মধ্যে ১৫ টি গ্রাম পানিতে তলিয়ে আছে, ঘরবাড়ি সহায়-সম্বল হারিয়ে তারা অমানবিক জীবনযাপন করছে। ত্রাণ সামগ্রী বলতে গত ছয় দিনে ৫০ বস্তা শুকনো খাবার ছাড়া আর কিছু জোটেনি।’

তিনি আরও বলেন, শুনেছি উপজেলা পরিষদ থেকে একটন চাল ও ২৫ হাজার টাকা দেয়া হয়েছে কিন্তু আমি সেটা পায়নি। তিনি ও ত্রাণ নয় টেকসই বাঁধের দাবি করেন।

মহারাজপুর ইউপি চেয়ারম্যান আব্দুল্লাহ আল মামুন লাভলু বলেন, ‘ইউনিয়নে ৩৬ টি গ্রামের মধ্যে ২৫ গ্রাম পানিতে প্লাবিত রয়েছে। সহায়-সম্বল হারিয়ে মানুষ মানবতার জীবনযাপন করছে। গ্রামবাসীদের নিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমে আমরা ভাঙা বাঁধ আটকাতে ছয়দিন যাবৎ চেষ্টা অব্যাহত রেখেছি।’

সাতক্ষরীরা পানি উন্নয়ন বোর্ডের নির্বাহী প্রকৌশলী রাশেদুর রহমান বলেন, কয়রায় ঘূর্ণিঝড় ইয়াসে পায় পাঁচ কিলোমিটার বেড়িবাঁধ ক্ষতিগ্রস্ত হয়েছে আংশিক ক্ষতি প্রায় ১৫ কিলোমিটার। ক্ষতিগ্রস্ত স্থানে বাঁধ মেরামতের জন্য জাইকা ও পানি উন্নয়ন বোর্ডের টেন্ডার আহ্বান করা হয়েছে। যত দ্রুত সম্ভব ক্ষতিগ্রস্ত এলাকায় কাজ শুরু করা হবে। বর্তমানে স্থানীয় জনপ্রতিনিধিদের মাধ্যমে বাঁধ মেরামতের সরঞ্জামাদি বাঁশ, জিও ব্যাগ, সিনথেটিক ব্যাগ, দড়ি, পেরেক দিয়ে স্বেচ্ছাশ্রমের মাধ্যমে মেরামত কাজ অব্যাহত আছে। গত ২৮ মে পাঁচটি পয়েন্ট ভেঙে যাওয়া বেড়িবাঁধ মেরামত করা হয়েছে। বাকিগুলো মেরামতের কাজ চলমান আছে৷

স্থানীয় সংসদ সদস্য আলহাজ্ব আক্তারুজ্জামান বাবু বলেন, ষাটের দশকে নির্মিত বাঁধগুলো দীর্ঘদিন সংস্কার না হওয়ায় ঝুঁকিপূর্ণ হয়ে পড়েছে। অনেক স্থানেই কোনভাবেই জোয়ারের পানির চাপ সহ্য করতে পারছে না। এজন্য সরকার টেকসই বাঁধ নির্মাণের মেগা প্রকল্প নিয়েছে। সেই কাজ শুরু হওয়ার আগে বাঁধের ঝুঁকিপূর্ণ স্থানসমূহ জরুরি ভিত্তিতে সংস্কারের জন্য মন্ত্রণালয়ের দৃষ্টি আকর্ষণ করা হয়। পানি সম্পদ উপমন্ত্রী সংশ্লিষ্ট কর্মকর্তাদের দ্রুত পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন। স্থানীয় জনগণও স্বতঃস্ফূর্তভাবে বাঁধ সংস্কারে অংশ নিচ্ছে। সংস্কার কাজের অগ্রগতি দেখতে উপমন্ত্রী চলতি সপ্তাহে ওই এলাকায় আসবেন বলে তিনি জানান। প্লাবিত এলাকার মানুষের জন্য ত্রাণ বিতরণ অব্যাহত রয়েছে।

খবরটি আপনার স্যোশাল টাইমলাইনে শেয়ার করুন।

Leave a Reply

Your email address will not be published. Required fields are marked *

এই জাতীয় আরও অন্যান্য খবর
কপিরাইট © ২০২১ সর্বস্বত্ব সংরক্ষিত মুহূর্ত কমিউনিকেশনস লিমিটেড।
error: কপি/রাইট ক্লিক এর অনুমতি নাই !!!